অনার্স পড়ুয়াদের জন্য এই লেখাটি খুব গুরুত্বপূর্ণ

অনার্স পড়ুয়াদের জন্য এই লেখাটি খুব গুরুত্বপূর্ণ
আজকের লেখাটি শুধুই তাদের জন্য যারা ইন্টারমিডিয়েট শেষে উচ্চশিক্ষা অর্জন করছেন।

আমার কাছে মনে হয়েছে ছাত্রজীবন এবং কর্মজীবন এই দুইয়ের মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সময় হচ্ছে অনার্স। আমি বুঝাতে চাচ্ছি ইন্টারমিডিয়েট শেষ করার পর ৩ বছর বা ৪ বছরের কোন কোর্স। আপনি যদি এই পর্যায়ে এসে থাকেন তাহলে অতীতে আপনি কি করছেন বা অতীতের সময়টা কিভাবে কাটিয়েছেন তা খুব একটা বিষয় না। কেননা আপনি বর্তমান সময়টা কিভাবে ব্যয় করার চিন্তা করছ তার উপর নির্ভর করবে নিকট ভবিষ্যত জীবন। আজকের আর্টিকেলটি তাই এতোটাই গুরুত্বপূর্ণ। আর্টিকেলটি মনযোগ দিয়ে পড়লে আশাকরি আপনার জীবনের জন্য কিছুটা হলেও উপকারে আসবে।

১) কিছু একটা করব জীবনেঃ
এই পর্যাবে এসে আমরা অনেকেই ভাবি আগে পড়াশোনা শেষ করি তারপর কিছু একটা করব। যে বা যারাই এই চিন্তা নিয়ে অনার্স সময়টা কাটিয়ে দেয় আমি দেখেছি তারাই সবচেয়ে বেশি সমস্যার সম্মুখীন হয়। যদি না আপনার মামা-খালু, টাকা থেকে থাকে। কেননা যাদের সহযোগিতা করার মত কেউ থাকে তারা কোন না কোন ভাবে কিছু একটা আসলেই করে ফেলে বা হয়ে যায়। কিন্তু আমাদের যাদের টাকাও নেই বা সহযোগিতা পাওয়ার মত কেউ নেই তাদেরই যত সমস্যা আর দুশ্চিন্তা। তাই আপনাকে অন্তত এই চিন্তা নিয়ে পড়ে থাকলে চলবে না। এই চিন্তা থেকে বের হয়ে কিছু একটা খুজে বের করুন।

২) খাওয়া-দাওয়া ঘুম আড্ডাঃ
খাওয়া-দাওয়া ঘুম আড্ডা এটাই আমাদের অনেকেই অনার্স জীবনের প্রধান কাজ। কিছু প্রধান যে কাজ পড়াশোনা সেটাই আমরা ভুলে যাই। আর এই ভুলটাই আমাদের জীবনের সবচেয়ে বড় ভুল। তারপর কোন রকম দ্বিতীয় শ্রেনী নিয়ে অনার্স শেষ করতে পারলেই যেন বাচি। কিন্তু এই বেচে থাকাটা যে কত যন্ত্রনার আর কষ্টের তা বুঝা যায় যখন সবার কাছ থেকে শুনা যায় চাকরী নেই, চাকরী নেই, চাকরী পাওয়া অনেক কঠিন ইত্যাদি। আসলেই চাকরী পাওয়া অনেক কঠিন অন্তত আপনার জন্য। চাকরীর এই মহাসমুদ্রের পড়াশোনায় আপনি তো একটা কাগজের নৌকা! আপনার নৌকা চলবে কি করে আপনি তো কতদিন হল স্টার্ট দিয়েই দেখেন নি।

তাই সত্যিকার অর্থেই যদি জীবনে খাওয়া-দাওয়া ঘুম আড্ডা চান তাহলে অনার্স জীবনে এই খাওয়া-দাওয়াটা ঠিক রেখে ঘুম, আড্ডা একটু কমিয়ে দিন আর পড়াশোনাটা একটু বাড়িয়ে দিন। তাহলে এই পরিশ্রম আপনাকে এনে দিতে পারে আপনার শান্তির জীবন।

৩) সবকিছু বাদ দিয়ে শুধুই পড়াশোনাঃ
যাক বাবা আপনি তো দেখছি সবকিছু বাদ দিয়ে পড়াশোনায় নেমে পড়েছেন! এখানে আবার সমস্যা কোথায়? আপনি তো এটাই চেয়েছিলেন না? না মানে চেয়েছিলাম কিন্তু সবকিছু বাদ দিয়ে না। কেননা শুধু পড়াশোনা যদি আপনাকে চাকরী এনে না দিতে পারে তাহলে একবার ভেবে দেখেছেন কি হবে আপনার। আমাদের দেশে শুধু পড়াশোনা করে ভাল চাকরী পাওয়া যায় এটা বলা কঠিন। আপনি তো জানেন যে বিসিএস পরীক্ষায় ২০০০ আসনের বিপরীতে ৪,০০,০০০ মানুষ আবেদন করে। এবং ৩,৯৮,০০০ জন চাকরী পাবে না যদিও তারা অনেক পড়াশোনা করে এসেছে। তাহলে কি পড়াশোনা বন্ধ করে দেব? না সেটা করবেন না। সবকিছু বাদ দিয়ে পড়াশোনা না, পড়াশোনার পাশাপাশি আপনি কিছু একটা করার চেষ্টা করুন। যেমনঃ কোন কাজ শেখা, কোন দক্ষতা অর্জন ইত্যাদি এমন কোন কিছু যা আপনি জীবনে চাকরি না পেলেও যেন বসে না থাকতে হয়।

আমার পরামর্শঃ
আমি আপনাদের যে কথাটা বলতে চেয়েছি তা হল আপনার জীবনের একটা গুরুত্বপূর্ণ সময় হচ্ছে অনার্স জীবন। এই জীবনের উপরই নির্ভর করবে আপনার কর্মজীবন। আর কর্মজীবন যদি ভাল না হয় তাহলে সেটা কতটা যন্ত্রনার তা আপনি এখন অনুধাবন করতে পারবেন না। আপনার প্রতিটা দিন আপনি কাজে লাগান। সময় অবচয় করা যাবে না। মন দিয়ে পড়াশোনা করুন আর পড়াশোনার পাশাপাশি কোন একটা কাজ শিখুন।
লেখাটি আপনাদের কেমন লেগেছে কমেন্ট করে জানান আর ভাল লাগলে বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন। ভাল থাকবেন সবসময়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *